ধর্ষণ মামলার পলাতক আসামি ১৪ বছর পর গ্রেফতার

কিশোরগঞ্জের কুলিয়ারচরে ধর্ষণ মামলার যাবজ্জীবন কারাদন্ড প্রাপ্ত আসামী সোহেল মিয়া ১৪ বছর ধরে পলাতক থাকার পর সম্পতি গ্রেফতার করেছে কুলিয়ারচর থানা পুলিশ।

গ্রেফতারকৃত সাজাপ্রাপ্ত আসামি সোহেল মিয়া (৩৮) কুলিয়ারচর উপজেলা উছমানপুর ইউনিয়নের কিলেরবন গ্রামের মৃত আইনব আলীর ছেলে। জানা যায়, উক্ত ধর্ষণের ফলে ধর্ষিতার গর্ভে জন্ম নেওয়া কন্যা সন্তান বর্তমানে স্থানীয় একটি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে ৯ম শ্রেণীতে অধ্যায়নরত আছে।

দীর্ঘ ১৪ বছর পলাতক থাকার পর গত বৃহস্পতিবার (১৯ জানুয়ারি) দিবাগত রাতে চট্রগ্রাম থেকে গ্রেফতারের পর শুক্রবার ( ২০ জানুয়ারি) দুপুরে তাকে কিশোরগঞ্জ জেল হাজতে প্রেরণ করে কুলিয়ারচর থানা পুলিশ।

পুলিশ ও মামলার বিবরণে জানাযায়, ২০০৮ সালে মার্চ মাসে বিয়ের প্রলোভ দেখিয়ে সোহেল মিয়া একই গ্রামের মামলার বাদীর (ধর্ষিতার) ঘরে প্রবেশ করে তাকে ধর্ষন করে । পরে ১৫ মার্চ ধর্ষিতা বাদী হয়ে কুলিয়ারচর থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে সোহেল কে আসামী করে মামলা দায়ের করে ।মামলা দায়েরের ১০ বছর পর ২০১৮ সালে আসামীর অনুপস্থিতিতে কিশোরগঞ্জ জেলা ও দায়রা জজ আসামীর বিরুদ্ধে যাবজ্জীবন কারাদন্ডের রায় দেন ।

এ বিষয়ে কুলিয়ারচর থানার (ওসি) মোহাম্মদ গোলাম মোস্তফা জানান, ধর্ষণ মামলার পর থেকে দীর্ঘ ১৪ বছর ধরে আসামি সোহেল পলাতক ছিলো। অবশেষে তাকে চট্রগ্রাম থেকে গ্রেফতার করা হয়। ধর্ষণের ফলে ধর্ষিতার গর্ভে জন্ম নেওয়া কন্যা সন্তানটি বর্তমানে স্থানীয় একটি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে ৯ম শ্রেণির ছাত্রী । তবে ডিএনএ টেষ্টের পর সন্তানের আসল পরিচয় জানা যাবে।

#প্রথম সংবাদ

- Advertisement -

সর্বশেষ সংবাদ