কর্মীবান্ধব যুবনেতা তারেক কে সভাপতি হিসেবে চায় তৃণমূল

বরগুনার তালতলীতে যুবলীগের আহবায়ক কমিটি দিয়েই দীর্ঘ সাড়ে তিন বছর পার করে আসছেন।১৫ জানুয়ারী বর্ধিত সভাকে ঘিরে পদপ্রত্যাশী নেতারা ইতোমধ্যে শহর জুড়ে সাঁটিয়েছেন শুভেচ্ছা পোস্টারও।

উপজেলা যুবলীগের সম্মেলন ঘিরে শীর্ষ দুই পদে আসতে তৎপর যুবলীগের বর্তমান ও ছাত্রলীগের সাবেক নেতারা। স্থানীয় ও কেন্দ্রের নেতাদের কাছে নিজেদের আত্ম সামাজিক পরিচয় তুলে ধরে নিজেদেরকে যুবলীগের যোগ্য প্রার্থী হিসাবে জাহির করতে জোরে সোরে প্রচার-প্রচারনা চালিয়ে যাচ্ছে।

বরগুনার তালতলী উপজেলা যুবলীগের সভাপতি পদে প্রার্থী হতে যাচ্ছেন ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সভাপতি মো. তারেকুজ্জামান তারেক। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে জনপ্রিয়তায় শীর্ষে রয়েছেন ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সভাপতি ও বর্তমান যুবলীগের সভাপতি পদপ্রত্যাশী তারেক।

ছাত্রনেতা তারেক তৃণমূলে নেতা-কর্মীদের প্রাণ ভোমরা রূপান্তরিত হয়েছে। তিনি দীর্ঘদিন ধরে তৃণমুল পর্যায়ের দলীয় নেতাকর্মীদের সাথে সক্রিয় রাজনীতি করে আসছেন। তার রাজনৈতিক জীবনে তালতলীর একাধিক গরীব ও অসহায়দের সহযোগিতা করে তিনি শহরবাসীর কাছে বেশ সুনাম অর্জন করেছেন। তিনি আসন্ন যুবলীগের সম্মেলন সভাপতি পদে প্রার্থী হতে যাচ্ছেন । তার ইচ্ছা তালতলী যুবলীগের সভাপতির দায়িত্ব নিয়ে তৃণমূল যুবলীগকে নিয়ে শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করা।

এ বিষয়ে মাঠ পর্যায়ের যুবলীগের নেতা-কর্মীরা সাংবাদিককে জানান, আমরা এবার তারেকুজ্জামান তারেককে যুবলীগের সভাপতি হিসাবে দেখতে চাই। এ জন্য তার প্রতি সব সময় আমাদের দোয়া ও আশির্বাদ রয়েছে। তিনি যুবলীগের সভাপতি নির্বাচিত হলে নেতা-কর্মীদের মাঝে যে টানাপোড়েন আছে তা শেষ হয়ে যাবে। উপজেলা যুবলীগ চাঙ্গা হবে। সাধারণ যুবলীগ কর্মীরা প্রাণ খুলে কথা বলতে পাবে সভাপতির সাথে। বর্তমান দায়িত্ব প্রাপ্ত যুবলীগের নেতাদের সাথে যে কর্মীদের দূরত্ব আছে সেটা শেষ হয়ে যাবে। সেই সাথে বিভিন্ন ইউনিয়নের অবহেলিত নেতাকর্মীরা মনোবল ফিরে পাবে। আসন্ন সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে শেখ হাসিনার হাতকে আরো শক্তিশালী করতে তৃণমুল যুবলীগের নেতাকর্মীদের মাঠে ফেরাতে তারেকুজ্জামানের বিকল্প নেই।

নাম না প্রকাশ করার শর্তে একাধিক যুবলীগ নেতা জানান, যেহেতু তারেকুজ্জামান তারেক দীর্ঘদিন থেকে তৃণমূলে কাজ করে আসছেন। তাছাড়া মাঠ পর্যায়ে যুবলীগের নেতাকর্মীদের নিয়ে মিটিং মিছিলে সরব উপস্থিতি দেখিয়েছে। দলের দুর্দিনে দলের সাথে ছিলো এবং সে ত্যাগী নেতা। তাই যুবলীগের সভাপতি হওয়ার দৌরাত্ম্যে এগিয়ে আছেন তিনি।

তারা আরও বলেন আমরা সাধারণ কর্মীরা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী,গণতন্ত্রের মানসকন্যা, জননেত্রী শেখ হাসিনা ও যুবলীগের সভাপতি শেখ ফজলে শামস ও সাধারণ সম্পাদক মাঈনুল হোসেন খানের প্রতি আকুল আবেদন করছি। তালতলীতে যুবলীগের সভাপতি হওয়ার একমাত্র দাবিদার হলেন আমাদের তারেক ভাই। সে ছাড়া বিকল্প কোন প্রার্থী নেই। তিনি একমাত্র যোগ্য প্রার্থী।

উপজেলা যুবলীগের সভাপতি প্রার্থী ও ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সভাপতি মো. তারেকুজ্জামান তারেক বলেন, হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শকে বুকে ধারন করে এবং বর্তমান বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার সাধারন কর্মী হয়ে আমি কাজ করে আসছি। বিগত দিনে আমি কখনোই দলীয় সিদ্ধান্তের বাহিরে যাইনি এবং যত দিন বেঁচে থাকবো ততদিন দলের শৃঙ্খলা শতভাগ মেনে চলবো। তিনি আরও বলেন দীর্ঘদিন ধরে তালতলী যুবলীগের সম্মেলন না হওয়ায় কর্মীরা ঝিমিয়ে পড়েছেন। শুণ্যতায় ভুগছেন। তাদের জায়গা প্রয়োজন। আমি যদি সভাপতির দায়িত্ব পাই তাহলে সঠিক ভাবে দায়িত্ব পালন ও তালতলী উপজেলা যুবলীগকে সুসংগঠিত করবো।

#প্রথম সংবাদ

- Advertisement -

সর্বশেষ সংবাদ