সুন্দরবনে মুক্তিপণের দাবীতে অপহৃত ৩ জেলে

সুন্দরবনের বুজবুজে এলাকা থেকে ২টি নৌকা থেকে প্রায় ১০ হাজার টাকার মাছ লুটে নিয়ে গেছে একটি দস্যু বাহিনী। গর রাত ৯টার দিকে সুন্দরবন পূর্ব বনবিভাগের হাড়বাড়ীয়া ও চরাপুটিয়া ফরেস্ট অফিসের মাঝামাঝি বুজবুজে এলাকায় এ ঘটনায় ঘটে।

দস্যুদের কবল থেকে সোমবার ভোরে মোংলায় ফিরে আসা জেলেরা জানান, গত শুক্রবার চাঁদপাই রেঞ্জ অফিস থেকে বর্শি ধরার পাস নিয়ে সুন্দরবনে যান তারা। দুইটি নৌকায় ৪জন জেলে রবিবার দিবাগত রার ৯টার দিকে বুজবুজে খালে মাছ ধরার সময় হঠাৎ দুইটি নৌকায় দস্যুরা এসে হাজির হন। দস্যুরা এসে প্রথম জেলেদের কাছে নগদ টাকা দাবী করেন। জেলেদের কাছে টাকা না থাকায় টাকা দিতে না পারায় দস্যুরা জেলে নৌকার প্রায় ১০ হাজার টাকা মূল্যের ২০/২৫ কেজি জাবাসহ বিভিন্ন প্রজাতির সাদা মাছ লুটে নেয়। এ সময় দস্যুরা জেলেদের নৌকার খাবারদাবারও নিয়ে যায়। জেলেরা বলেন, ডাকাতদের কথার ভাষায় মনে হয়েছে তাদের বাড়ীঘর মোংলার চিলা-জয়মনি এলাকায়। দস্যুূের কবল থেকে ফিরে আসা জেলেদের বাড়ী খুলনার বটিয়াঘাটা বিরাট বুজবুনিয়া এলাকায়।

এর আগে শনিবার রাতে শ্যালা নদীর চৌরি অফিস সংলগ্ন আলকি এলাকা থেকে ৯০ হাজার টাকা মুক্তিপণের দাবীতে তিন জেলেকে অপহরণ করে দস্যুরা। অপহৃত জেলেদের বাড়ী খুলনার বটিয়াঘাটা উপজেলায়। অপহৃত তিন জেলে মোংলার জয়মনির মহাজন লিটনের জেলে।

কোস্ট গার্ড পশ্চিম জোন সদর দপ্তরের (মোংলা) অপারেশন অফিসার লেঃ কমান্ডার তারেক আহমেদ বলেন, এ বিষয়টি আমরা দেখছি, মাঝে বড় একটা সময় ধরে সুন্দরবনে এসব ছিলো না। সম্প্রতি এ ধরণের তথ্য পাচ্ছি। এটা একটি চক্র, আমরা তাদেরকে সনাক্ত ও আটকে টহল বৃদ্ধি করছি।

উল্লেখ্য, ২০১৮ সালের ১লা নভেম্বর প্রধানমন্ত্রী সুন্দরবনকে দস্যুমুক্ত ঘোষণা করেন। তারপর থেকে শান্ত ছিলো সুন্দরবনের পরিবেশ। কিন্তু গত ২০/২৫ দিন ধরে আকস্মিক মাথা চাঁড়া দিয়ে উঠেছে দস্যু বাহিনী। এতে আতংকিত হয়ে পড়েছেন জেলেরা।

#প্রথম সংবাদ

- Advertisement -

সর্বশেষ সংবাদ