হয়রানি থেকে রক্ষায় শিক্ষকের সংবাদ সম্মেলন

বরগুনার তালতলী উপজেলায় জমি জমিজমা বিরোধকে কেন্দ্র করে সৎ ভাইয়ের বিরুদ্ধে ভাইকে হত্যার হুমকি এবং মামলা দায়ের হুমকি দেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

রোববার (১১ডিসেম্বর) দুপুরে বরগুনা সাংবাদিক ইউনিয়নের সংবাদ সম্মেলন করে এই অভিযোগ করেন স্কুল শিক্ষক মুঃ মুজ্জাম্মিল হক।

মোজাম্মেল তালতলী উপজেলার ছোটবগী ইউনিয়নের ছোট বগী গ্রামের মৃত জব্বার হাওলাদারের ছেলে এবং ছোট বগী পিকে মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক।

সংবাদ সম্মেলনে মুঃ মুজ্জাম্মিল হক বলেন, আমার পিতা মৃত্যুর পর আমরা ওয়ারিশ গন তার রেখে যাওয়া সম্পত্তি জমিজমা মুসলিম ফরায়েজ মোতাবেক ভোগ দখল করছি। বিগত দুই তিন বছর যাবৎ আমার ভাই জব্বার হাওলাদার ও রশিদ হাওলাদার এবং মজিকের মিলে আমার দখলীয় জমি জোড় পূর্বক দখলে নিতে অপচেষ্টা চালায়।

খুন যখন ও মিথ্যা মামলা দেওয়ার হুমকি দিতে থাকে এবং আমার জমির পাকা ধান কাটিয়া নেওয়ার হুমকি দেয় । আমি তালতলী থানায় অভিযোগ করি। তাদের কে থানায় যেতে বললে তারা থানায় যায়না দারোগা তাদের সাথে ফোনে কথা বললে তারা ঝামেলা করবেনা বলে অঙ্গীকার করে।

তার পর গতকাল শনিবার (১০ ডিসেম্বর) আমরা ধান কাটতে গেলে তারা দলবল নিয়ে আমাদেরকে হুমকি দেয় ও কিল ঘুষি ও ধাক্কাধাক্কি করে তখন স্থানীয় হানিফ চৌকিদার আমাদেরকে ধান কাটতে নিষেধ করে আমরা ধান কাটা বন্ধ করি । হানিফ চৌকিদার জব্বার হাওলাদার সহ তাদের সবাইকে সেখান থেকে নিয়া যায়।

পরবর্তীতে জানিতে পারি জব্বার হাওলাদার তার নিজের মাথা নিজেই কেটে বরগুনা হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে এবং চিকিৎসা নিচ্ছে ও আমাদের নামে মিথ্যা মামলা দেওয়ার হুমকি দিচ্ছে।
এমতাবস্থায় আমি আমার ধান ফেরত পাওয়া ও যাতে মিথ্যা মামলা না হয় তার থেকে বাঁচার জন্য সহযোগিতা চাচ্ছি।

ঘটনাস্থলে মধ্যস্থ করা সাবেক ইউপি সদস্য হানিফ চৌকিদার বলেন, তাদের নিজস্ব জমি জমা নিয়ে বিরোধ চলছিল। আমি ঘটনাস্থলে গিয়ে দুই পক্ষকে শান্ত করি। এ সময় কেউ কোনো জখম হয়নি। পরবর্তীতে শুনতে পাই জব্বার হাওলাদার মাথায় জখন হয়েছেন এবং তিনি হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। তিনি কিভাবে আহত হলেন সেই বিষয়টি আমার জানা নেই।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে জব্বার হাওলাদার বলেন, বিরোধী জমিতে আমার সৎ ভাই মোজাম্মেল হোসেন ধান কাটতে গেলে স্থানীয় সাবেক মেম্বর হানিফ চৌকিদারকে সঙ্গে নিয়ে বাধা দেই। বাধা দেওয়ার একপর্যায়ে তারা ধান কাটার কাচিঁ দিয়ে আমার মাথায় আঘাত করে। পরে আমি দৌড়ে বাসায় গিয়ে জ্ঞান হারিয়ে ফেলি।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে তালতলী থানার পরিদর্শক সাখাওয়াত হোসেন বলেন, ছোট বগি ইউনিয়নের জমি জমা নিয়ে একটি সমস্যা হয়েছিল সেখানে গতকাল পুলিশ গিয়েছিল তবে ওখানে কোন মারামারির ঘটনা ঘটেনি।

#প্রথম সংবাদ

- Advertisement -

সর্বশেষ সংবাদ