৫ ঘন্টার মধ্যে কোরবানির বর্জ্য অপসারণ করা হবে : মেয়র স্বপন মিয়াজী

 

ফেনী প্রতিনিধি  ।।

আসন্ন পবিত্র ঈদুল আজহায় কোরবানির বর্জ্য ৫ ঘণ্টার মধ্যে অপসারণের ঘোষণা দিয়েছেন ফেনী পৌরসভার মেয়র নজরুল ইসলাম স্বপন মিয়াজী। এছাড়া ফেনী পৌরসভার ১৮টি ওয়ার্ডের জনসাধারণের জন্য ৪০ হাজার কোরবানির বর্জ্য অপসারণ ব্যাগ দেয়া হয়েছে।

 

পৌর মেয়র নজরুল ইসলাম স্বপন মিয়াজী বলেন, আমি পৌরসভার দায়িত্ব গ্রহণের পর থেকে কোরবানির বর্জ্য অপসারণকে চ্যালেঞ্জ হিসেবে নিয়েছি। পৌরবাসীর সহযোগিতায় গত বছরের কোরবানির ৬ ঘন্টার মধ্যে বর্জ্য অপসারণ করতে পেরেছি। এ বছর কোরবানির বর্জ্য ৫ ঘন্টার মধ্যে অপসারণের জন্য পরিচ্ছন্নতাকর্মীদের নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। তাঁরা ঈদের দিন দুপুর ১টা থেকে মাঠে সেবকরা কাজ করবেন এবং সন্ধ্যা ৬টার মধ্যেই সকল বর্জ্য অপসারিত হবে। এবং কোরবানির বর্জ্য অপসারণে নিয়োজিত কর্মকর্তা, কর্মচারীদের পাশাপাশি মেয়র নিজেও মাঠে থাকবেন বলে জানান।

 

কোরবানির বর্জ্য অপসারণের সঙ্গে জড়িত পৌরসভার কর্মকর্তা-কর্মচারীর ছুটি বাতিল ঘোষনা দিয়ে মেয়র বলেন, ১২টি টিমে ২শতাধিক সেবক কাজ করবে। যেই টিম যথাযথ দায়িত্ব পালন করবে তাকে পুরষ্কৃত করার ঘোষনা দেন তিনি। শুধু শহরের প্রধান সড়ক নয়, অলিগলি থেকেও বর্জ্য অপসারণ করতে নির্দেশনা দেন। এছাড়া শহর দূর্গন্ধমুক্ত করতে বিভিন্ন সড়ক ও পাড়ায় পানি-ব্লিসিং পাউডার ছিটানো হবে।

 

মেয়র আরো বলেন, বর্জ্য অপসারণের কাজ করার কারণে সেবকরা ঈদের আনন্দ থেকে বঞ্চিত হবেন। এ জন্য ঈদের পরের দিন তাদের জন্য বিনোদন ও উন্নত মানের খাওয়ার ব্যবস্থা করা হবে।

 

তিনি বলেন, যারা কোরবানি করবেন সেসব পৌরবাসীর জন্য ৪০ হাজার ব্যাগ (বস্তা) তৈরি করা হয়েছে। প্রতিটি ওয়ার্ডে কাউন্সিলদের মাধ্যমে পাঠানো হয়েছে। প্রতিটি ওয়ার্ডের কাউন্সিলর পৌরনাগরিকদের ধারে ধারে পৌছে দিবে। এই ব্যাগ (বস্তা) কোরবানির বর্জ্য রেখে দেবেন, সেগুলো আমরা অপসারণ করে নেব। তবে এসব বর্জ্য রাস্তা বা ড্রেনে না পেলার পরামর্শ্য দেন মেয়র।

 

গত বছরের ন্যায় এই বছর ঈদ উপলক্ষে পরিচ্ছন্নতাকর্মীদের জন্য দুটি গরু ও পাঁচটি ছাগল জবাই করার নির্দেশ দিয়েছি।এছাড়া শতাধিক পরিচ্ছন্নতাকর্মীদেরকে চাউল,লুঙ্গী ও ঈদ সেলামি দেয়ার কথা জানান তিনি।

 

পৌরসভা সূত্র জানায়, শহরের ১৮টি ওয়ার্ডে কোরবানির বর্জ্য অপসারণ করতে ১২টি টিম গঠন করা হয়েছে। প্রতিটি টিমের জন্য একটি সুপারভাইজার ও একটি করে ট্রাক্টর দেওয়া হয়েছে। এসব টিমে ২শ জন সদস্য নিযুক্ত রয়েছে। এছাড়া একটি ভ্রাম্যমান টিম, একটি পানির গাড়ি ও একটি গাড়ি নিয়োজিত থাকবে। প্রতিটি টিমকে ১০০ করে ব্যাগ দেওয়া হয়েছে। এসব টিমকে তদারকি করতে তিনজনকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। এদের মধ্যে ১নং থেকে ৬নং ওয়ার্ডে স্যানিটারি ইন্সপেক্টর কৃষ্মময় বনিক, ৭নং থেকে ১২নং ওয়ার্ডে সাবেক (অবসর প্রাপ্ত) স্যানিটারি ইন্সপেক্টর মো. শাহাজাহান, ১৩নং থেকে ১৮নং ওয়ার্ডে কনজারভেন্সি ইন্সপেক্টর সরোয়ার আলম।

 

সূত্র আরো জানায়, পৌরসভার নির্ধারিত ১০৯টি স্থানে পশু জবাই করতে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। এ লক্ষ্যে মাইকিংও করা হয়েছে। ওয়ার্ড কাউন্সিলরের মাধ্যমে প্রতি ওয়ার্ডের জন্য ২ হাজার ব্যাগ দেওয়া হয়েছে

Related Articles

Stay Connected

0FansLike
0FollowersFollow
0SubscribersSubscribe
- Advertisement -spot_img

Latest Articles