দারুন উচ্ছসিত এডওয়ার্ডস

 

 

দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে বিশ্বকাপে স্মরণীয় জয়ের পর নেদারল্যান্ডস অধিনায়ক স্কট এডওয়ার্ডস প্রশংসায় ভাসছেন। অন্যদিকে ৩৮ রানের পরাজয়ে প্রোটিয়া অধিানয়ক টেম্বা বাভুমা স্বীকার করেছেন এই ধরনের হার সত্যিই দু:খজনক।

ধর্মশালায় বৃষ্টি বিঘ্নিত ম্যাচে নেদারল্যান্ডসের দেয়া ৪৩ ওভারে ২৪৫ রানের জবাবে দক্ষিণ আফ্রিকার ইনিংস ২০৭ রানে গুটিয়ে যায়। এডওয়ার্ডস অধিনায়কোচিত পরাজিত ৭৮ রানের ইনিংস খেলেন । টানা দুই পরাজয়ের পর অঘটনের জন্ম দিয়ে এবারের আসরে প্রথম জয়ের পর এডওয়ার্ডস বলেছেন, ‘এই দলটিকে নিয়ে আমি গর্বিত। এই ধরনের পারফরমেন্সে গর্বিত হওয়াটাই স্বাভাবিক। আমি নিজেও দলের এই জয়ে ভূমিকার রাখতে পেরে দারুন খুশী। আমরা যখন বিশ্বকাপে খেলার সুযোগ পেয়েছি তখন থেকে সেমিফাইনালে খেলার স্বপ্ন দেখেছি। এই ধরনের জয় সে আশাকে আরো জাগিয়ে তোলে। অবশ্যই দক্ষিণ আফ্রিকা এবারের আসরের অন্যতম ফেবারিট দল। তারা যেভাবে খেলছে তাতে তাদের বিপক্ষে এই ধরনের জয় সত্যিই বিশেষ কিছু।’

২০০৩ আসরে নামিবিয়া ও ২০০৭ আসরে স্কটল্যান্ডকে হারানোর পর বিশ্বকাপে এটা ডাচদের তৃতীয় জয়। এছাড়া ৫০ ওভারের ম্যাচে কোন টেস্ট খেলুড়ে দলের বিপক্ষে নেদারল্যান্ডসের এটাই প্রথম জয়। গত বছর নভেম্বরে এডিলেডে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে এই দক্ষিণ আফ্রিকাকে হারিয়ে ডাচরা হইচই ফেলে দিয়েছিল।

অল রাউন্ডার রোয়েলফ ফন ডান মারুর ভূয়শী প্রশংসা করেছে এডওয়ার্ডস। দক্ষিণ আফ্রিকার হয়ে ১৩টি ওয়ানডে খেলার পর নেদারল্যাসে পাড়ি জমিয়েছেন মারু। ৩৮ বছর বয়সী অভিজ্ঞ এই অল রাউন্ডার ঝড়ো গতিতে ১৯ বলে ২৯ রান সংগ্রহ করেন। তার ইনিংসে ছিল তিনটি বাউন্ডারি ও একটি ওভার বাউন্ডারি। ৬ উইকেটে দলীয় ১১২ রানের পর অষ্টম উইকেটে তিনি ও এডওয়ার্ডস মিলে ৬৪ রান যোগ করেছেন। এছাড়া বল হাতে ৩৪ রানে মারু নিয়েছে দুই উইকেট। বাভুমা ও বিপদজনক রাসি ফন ডার ডুসেনের উইকেট দখল করে মারুই প্রোটিয়াদের রানের গতি থামিয়ে দেন।

এছাড়া টেল এন্ডার আরিয়ান দত্ত তিনটি ওভার বাউন্ডারির সহায়তায় ৯ বলে ২৩ রান সংগ্রহ করেছেন। আরিয়ানের প্রশংসা করে এডওয়ার্ডস বলেছেন, ‘ব্যাট হাতে আজ সে দারুন মজা করেছে। এমন কিছু আজব জায়গায় সে বল মেরেছে যা সাধারণত দেখা যায়না। তার ব্যাটিং বেশ উপভোগ্য ছিল। আমি নিশ্চিত দর্শকরাও আরিয়ানের ব্যাটিং বেশ উপভোগ করেছে। আমি তাকে শুধুমাত্র স্ট্রাইকের সুযোগ করে দিয়েছি, আর সে বাউন্ডারির বাইরে বল মেরেছে। অনেকদিন পর আমি কাউকে এভাবে ওভার বাউন্ডারি হাঁকাতে দেখলাম, বিশেষ করে নাম্বার টেন পজিশনে। আরিয়ানের মধ্যে সেই প্রতিভা আছে, তার ব্যাটিং দেখাটা সত্যিই আনন্দের।’

শ্রীলংকা ও পাঁচবারের চ্যাম্পিয়ন অস্ট্রেলিয়াকে হারিয়ে দারুন আত্মবিশ্বাস নিয়েই দক্ষিণ আফ্রিকা কাল মাঠে নেমেছিল । শ্রীলংকার বিপক্ষে তিন সেঞ্চুরিয়ান কুইন্টন ডি কক, আইডেন মার্করাম ও ফন ডার ডুসেনকে দ্রুত হারিয়ে চাপে পড়ে প্রোটিয়ারা। ৪৪ রানে ৪ উইকেট হারিয়ে দক্ষিণ আফ্রিকা রানের দিকে না তাকিয়ে উইকেটে টিকে থাকার কৌশল নেয়। বোলিংয়ে অতিরিক্ত ৩২ রান দিয়েছে কাল দক্ষিণ আফ্রিকা, যার মধ্যে ২১টি ওয়াইড বল ।

বাভুমা বলেছেন, ‘নেদারল্যান্ডসকে এই জয়ে কৃতিত্ব দিতেই হয়। তারা আমাদের দূর্বলতার সুযোগ নিয়েছে। অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে আমরা চতুরতার সাথে খেলেছি। কিন্তু চ্যালেঞ্জ সবসময়ই আসবে এবং তার জন্য প্রস্তুত থাকতে হবে। অতিরিক্ত রানগুলো আমাদের নিয়ন্ত্রন করা উচিৎ ছিল। ৩০টি অতিরিক্ত রান দেয়া মানে পাঁচ ওভার অতিরিক্ত বল করা। দিনের শেষে ঐ রানই আমাদের ভুগিয়েছে। এই বিষয়গুলো নিয়ে চিন্তা করার সময় এসেছে। এই ধরনের পরাজয় অবশ্যই হতাশার। তারপরও সবকিছুকে পিছনে ফেলে আমাদের এগিয়ে যেতে হবে।’

Related Articles

Stay Connected

0FansLike
0FollowersFollow
0SubscribersSubscribe
- Advertisement -spot_img

Latest Articles