ঢাকামঙ্গলবার , ২৯ মার্চ ২০২২
  1. অপরাধ
  2. অর্থনীতি
  3. আইন আদালত
  4. আন্তর্জাতিক
  5. কৃষি ও প্রকৃতি
  6. ক্যাম্পাস
  7. খেলাধুলা
  8. চিকিৎসা ও স্বাস্থ্য
  9. জাতীয়
  10. তথ্য ও প্রযুক্তি
  11. প্রবাস বাংলা
  12. বিনোদন
  13. রাজনীতি
  14. শিক্ষা
  15. সম্পাদকীয়

ফেনী থিয়েটার মঞ্চে আনলো মলিয়ঁর’র হাঁসির নাটক পেজগী

নিজস্ব প্রতিবেদক।।
মার্চ ২৯, ২০২২ ৮:১৩ অপরাহ্ণ
Link Copied!

ফরাসি নাট্যকার মলিয়ঁর’র হাঁসির নাটক পেজগী মঞ্চায়ন করেছে ঐতিহ্যবাহি নাট্যসংগঠন ফেনী থিয়েটার। সোমবার রাতে জেলা শিল্পকলা একাডেমীর মঞ্চে ‘পেজগী’ নাটকটির মঞ্চায়ন হলে দর্শকদের মনে ব্যাপক সাড়া জাড়িয়েছে। নির্মল হাঁসির এই নাটকটি রুপান্তর করেছেন অপু আনাম। নাটকটির নির্দেশনায় ছিলেন ফেনী থিয়েটারের সদস্য সচিব আনোয়ার হোসেন রাজু।

নাটকে বিভিন্ন চরিত্রে অভিনয় করেছেন আনোয়ার হোসেন রাজু (আজগর চরিত্র), ফজলুল হক রনি (পেজগী চরিত্র), ফাতেমা জান্নাত শশী (নুরানী চরিত্র), সাজ্জাতুল ইসলাম সানি (মগা চরিত্র), মো. ইরফান মিয়াজী (ম্যানেজার চরিত্র), মো. আব্দুল্লাহ ইবনে ওবায়েদ তুহিন (আকাশ চরিত্র), নাফিসা হক (লাইলী চরিত্র) ও সাদিয়া আফরোজ (কুলসুম চরিত্র)।

নাটকটির নির্দেশক আনোয়ার হোসেন রাজু বলেন, ‘ফরাসি নাটকের মূখ পটভূমি ঠিক রেখে বাংলাদেশের পুরান ঢাকার বাসিন্দাদের বিচিত্র পূর্ণ জীবন সংস্কৃতি রূপায়িত হয়েছে পেজগী নাটক। এক অশিক্ষিত কাঠ মিস্ত্রির কবিরাজ হয়ে ওঠা এবং উচ্চবিত্ত পরিবারের এক মেয়ের ভুল চিকিৎসা নিয়ে মলিয়েঁরের পেজগী নাটকটি কাহিনী তৈরী হয়।

নাটকে বাংলাদেশের সমসাময়িক সামাজিক দৈনতা ও স্থলনের নানা প্রসঙ্গ ও যুক্ত হয়েছে। পেজগী নাটকের সংলাপের মাধ্যমে, ভুল চিকিৎসা করেও চালাকির মাধ্যমে কবিরাজগণ বহুবার বেঁচে যায়। তবে শেষ রক্ষা হয় না। তাকে ধরা পড়তে হয়। কবিরাজের চালাকি ধরা পড়ার মধ্য দিয়ে নাটকে সমাপ্তি ঘটে। নাটকটির মাধ্যমে নাট্যকার মূলত অশিক্ষিত ও অপসংস্কৃতি যে কি ভয়ংকর বিপদ ডেকে আনতে পারে সেই বার্তাই দিতে চেয়েছেন। নাটকের কুশীলবদের মুখে হিন্দি-বাংলা-ইংরেজী মিলিত ভাষারূপ এ কামেডি নাটকের পূর্ণতা দিতে সহায়ক হয়েছে।’

ফেনী থিয়েটারের ৩৬ তম প্রযোজনার ‘পেজগী’ নাটকটিকে স্মৃতিবন্ধি করতে নাট্যসংগঠক ও সাংবাদিক নাজমুল হক শামীমের সম্পাদনায় একটি স্মারক ব্রুশিয়ার প্রকাশিত হয়েছে। যার অলঙ্করণ করেছেন চিত্রশিল্পী সুভাষ সূত্র ধর। নাটকের প্রযোজনা অধিকর্তা ছিলেন কামরুল আলম। আলোক প্রক্ষেপনে ছিলেন শফিউল আজম শাহেদ। আবহ সঙ্গীত সহযোগিতায় ছিলেন দিদার উল্যাহ মজুমদার। রূপসজ্জায় ছিলেন নাসির উদ্দিন সাইমুম ও তাহমিন তোফা সীমা।

ফেনী থিয়েটারের প্রধান সমন্বয়কারী কামরুল আলম বলেন, ‘১ জানুয়ারি ১৯৯০ সালে ফেনী থিয়েটার প্রতিষ্ঠিত হয়। ১৯৯০ সালের ১৪ এপ্রিল প্রথম প্রযোজনা ও প্রথম প্রদর্শনী “স্বাধীনতা তুমি কার” মঞ্চস্থ হয়। ফেনী থিয়েটার গত ৩৩ বছর ধরে ফেনীসহ সারা বাংলাদেশে ৩৬টি প্রযোজনার ৮০০টিরও অধিক মঞ্চায়ন সঠিকভাবে উপস্থাপন করেছে। অত্যন্ত সফলতার সাথে ৬টি নাট্যউৎসব, ৩টি পথনাটক উৎসবের আয়োজন করেছে।

ফেনী থিয়েটার ১৯৯৫ সাল থেকে বাংলাদেশে গ্রুপ থিয়েটার ফেডারেশনের পূর্ণঙ্গ সদস্য হিসেবে কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছে। আমরা চাই আগামী প্রজন্ম মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও সাংস্কৃতিক কর্মকান্ডের মধ্য দিয়ে উন্নতির শিখরে আরোহন করুক।’