নীলফামারীতে আধুনিক প্রযুক্তির মাধ্যমে উন্নতমানের ধান উৎপাদনের জন্য কৃষক পর্যায়ে প্রশিক্ষণ

স্বপ্না আক্তার। রংপুর ব্যুরো।।

নীলফামারীতে আধুনিক প্রযুক্তির মাধ্যমে কৃষক পর্যায়ে উন্নতমানের ধান উৎপাদনের জন্য কৃষক প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছে।

নীলফামারী সদর উপজেলায় কৃষি সম্প্রসারণ কার্যালয়ের অয়োজনে আধুনিক প্রযুক্তির মাধ্যমে কৃষক পর্যায়ে উন্নতমানের ধান, গম ও পাট বীজ উৎপাদন, সংরক্ষন ও বিতরণ প্রকল্পের আওতায় বিভিন্ন ইউনিয়নে কৃষক পর্যায়ে প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছে। বর্তমানেও উক্ত কৃষক পর্যায়ে প্রশিক্ষন চলমান পর্যায়ে অাছে। এ প্রকল্পের আওতায় ১০ টি রোপা আমন প্রদর্শনী বাস্তবায়ন হচ্ছে। প্রতিটি প্রদর্শনীতে একটি করে গ্রুপের মাধ্যমে ১০ জন পুরুষ ও ৫ জন নারী কৃষক মোট ১৫ জন কৃষককে ৫ দিনের প্রশিক্ষন দেওয়া হচ্ছে।

উক্ত প্রকল্পের ধানের রোগ ও পোকামাকড় দমনে কৃষক পর্যায়ে প্রশিক্ষণের মাধ্যমে মাঠ পর্যায়ে হাতে কলমে শেখানো হচ্ছে। সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষে কৃষকদের মাঝে লিফলেট বিতরণ করাও হয়েছে।

উল্লেখ্যঃ চলছে রোপা আমন মৌসুম, ধান এখন থোর অবস্থায়। এ সময় কৃষকদের বড় চিন্তার নাম কারেন্ট পোকা। সাধারণত বর্তমান সময়ে কারেন্ট পোকার বিস্তার বেশি দেখা যায়। এর ফলে ধানের পাশাপাশি, খড়ও নষ্ট হয়। রোপা আমন ধান নিয়ে কৃষকরা যেন কোন প্রকার বিপদে না পড়ে এজন্য সর্বদা মাঠে কর্মরত আছেন, নীলফামারী সদর উপজেলার কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা কৃষিবিদ মোঃ মিজানুর রহমান। তিনি নিয়মিত মাঠ পরিদর্শন, কৃষক গ্রুপ মিটিং, হাট বাজারে প্রচারণার কোন কমতি রাখেনি। কৃষকরা যেন তাদের ফসল নির্বিঘ্নে ঘরে তুলতে পারে এজন্য নিয়মিত সঠিক নিয়মে ঔষধ প্রয়োগ ও পরামর্শ দেওয়ার জন্য বৃষ্টি বাদল উপেক্ষা করে কৃষকদের সাথে নিয়ে মাঠে কাজ করে যাচ্ছেন প্রতি মুহুর্তে।

নীলফামারী সদরের পলাশবাড়ী ইউনিয়নে তরনীবাড়ী ব্লকে সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, কৃষক গ্রুপে আমন ধানের ক্ষতিকর পোকা ও রোগ বিষয়ে আলোচনা করেছেন নীলফামারী সদরের কৃষি সম্প্রসারণ অফিসার কৃষিবিদ জনাব মোঃ মিজানুর রহমান। এসময় উপস্থিত ছিলেন উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা।