মহামারী ঠেকাতে পারেনি কোচিং ব্যবসায়

- Advertisement -

(শিরীন সুলতানা)

মহামারী করোনা ভাইরাস কোভিড-১৯ এ শিক্ষার্থীদের সুরক্ষায় দেশের যাবতীয় শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখা হয়েছে।মাননীয় শিক্ষা মন্ত্রী বলেছেন,”এক বছর শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখলে দেশ নিরক্ষর হয়ে যাবে না কিন্তু শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলা রাখলে শত মায়ের বুক খালি হবে।” মাননীয় মন্ত্রী যথার্থই বলেছেন।কারণ, মহামারী এ ভাইরাসটি ছোঁয়াছে এবং বিভিন্ন মাধ্যমে অতি দ্রুত চোখকে ফাঁকি দিয়ে একজন থেকে অন্যজনের দেহে সংক্রমিত হয়।শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে একজন আক্রান্ত থাকলে তার থেকে পুরো শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও তাদের পরিবার পরিজন আক্রান্ত হতে পারে।অদৃশ্য এ ভাইরাস কখন কার কাছ থেকে ছড়াবে আপনি টের পাবেন না।
এখনের পর্যায়টাকে মাস স্প্রেড বলা হচ্ছে।আপনি ভাবতেও পারবেন না,কখন কোথায় থেকে আপনার দেহে ভাইরাসটি প্রবেশ করে যাবে এবং পূর্ণতা পাবার আগপর্যন্ত আপনি জানতেই পারবেন না ভাইরাসটি আপনার দেহে ছিলো এবং এর মাঝে কতশত মানুষকে আপনি আক্রান্ত করে ফেলবেন। যা আপনার পরিবার, আত্মীয়স্বজন, বন্ধুবান্ধব, কর্মক্ষেত্র সব জায়গায় ছড়িয়ে দিচ্ছেন।আপনার হয়তো ইনডিমনিটি ভালো,শক্তি সামর্থ্যবান যার কারণে ভাইরাসটি আপনার দেহে ১৪-২১ দিন ঘুরে শূন্য হয়ে যেতে পারে কিংবা সুপ্ত অবস্থায় থাকতে পারে কিন্তু আপনার আশেপাশে আপনার বৃদ্ধ মা,বাবা,শিশু, ডায়াবেটিকস,উচ্চরক্তচাপ ও সিরিয়াস কোন রোগে ভুগছে তার জীবনটা আপনি হুমকির দিকে ঠেলে দিতে পারেন না।নিজে বলছেন, মরলে মরবো,আল্লাহ যখন মরণ কপালে রাখছে তখন মরণ আসবেই কিন্তু আপনি মারছেন অন্যকে। আপনার একটু অসচেতনতায় আপনার চারপাশটা বিরানভূমিতে পরিণত হতে পারে।আপনি হতে পারেন, দেশে অযোগ্য; দেশের শুধু বোঝা ছাড়া আর কিছু নন কিন্তু এমন কিছু মানব সম্পদ আছে যারা মারা গেলে আপনি কেন শত -হাজার জন এমনকি পুরো প্রজন্মও তার ক্ষতিপূরণ করতে পারবে না।আপনি আপনার কথা ভেবেই শুধু বলে যাচ্ছেন, দেশে আঠারো(১৮) কোটি মানুষ থেকে যদি তিন(৩)কোটিও মারা যায় কিচ্ছু হবে না।এসব বলছেন আর আপনি মানুষকে খুন করায় নেশায় মরছেন।আমি আপনাকে খুনি বলছি কারণ,আপনার অসচেতনতা অন্যের মৃত্যুর জন্য দায়ী।
গত ৮ মার্চ কোভিড-১৯ এর ভাইরাসের জীবানুটি আমাদের দেশে প্রথম ধরা পরে।মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর যথা সময়ে সঠিক সিদ্ধান্তে সকল অফিস আদালত সহ সবকিছু ১৭ মার্চ থেকে বন্ধ হয়ে যাওয়ায় ভাইরাস সংক্রামিতের হার ধীরগতি ছিলো এবং১ম ২মাসে ৮ মে পর্যন্ত আক্রান্তের সংখ্যা ছিলো মাত্র ১৩,১৩৪ জন।ঘরে বসে কোয়ারেন্টাইনে থেকেও যেন হাঁপিয়ে উঠেছে সর্বস্তরের মানুষ।কেউ ছোটে জীবিকার তাগিদে, কেউ লোভে, কেউ আবার রঙ্গে ঢঙ্গে।কেউ কোয়ারেন্টাইনে বিয়ে করে নতুন সংসার করছে, সবই সীমিত পরিসরে।দোকান,ব্যাংক, অফিস আদালত সীমিত পরিসরে খোলার নির্দেশ আসায় সকলেই যেন হা্ফ ছেড়ে বেঁচেছে।যেখানে সারাদিনে ১০০০-২০০০ জনের ভীড় হতো সেখানে ১/২ ঘন্টায় হয় সমপরিমাণ ভীড়।সর্বত্রই যেন মৃত্যুর মিছিলে প্রতিযোগিতায় নেমেছে।তাইতো পরবর্তী ২মাস অর্থাৎ ৮ জুলাই পর্যন্ত ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা প্রায় ১৯ গুন বেড়ে ১,৭২,১৩৪ জন।গতকাল ১০-০৭-২০২০ইং পর্যন্ত দেশে মোট আক্রান্ত ১,৭৮,৪৪৩জন এবং মৃতের সংখ্যা ২,২৭৫জন।
এক সময় ইতালি,আমেরিকা,চীন দেশে আক্রান্ত ও মৃত্যুর হার দেখে কত ভয় পাইছেন!এখন নিজের ঘরে আক্রান্ত এখন আপনি ভয় পান না।ভয় পান না বলে লাফানি -যাপাযাপি ভালোই করেন কিন্তু নিজের ছেলে-মেয়ে,ভাই-বোন,স্বামী-স্ত্রী,বাবা -মার মৃত লাশ দাফন করতে দেন না।জানাজা করার জন্য এ্যাম্বুলেন্স থেকে নামানোর সাহস পান না কেন?পরে বাধ্য হয়ে একব্যক্তির জানাজা দায়িত্বরত কর্মকর্তারা এ্যাম্বুলেন্সেই আদায় করলো। আপনি তো মৃত্যুকে ভয় পান না।বলা হচ্ছে মৃত লাশে তিন(৩) ঘন্টা পর্যন্ত জীবানু থাকে। তার পরেও এতো ভয়।
আপনাদের ব্যাপারটাও হলো আমার ভয়ও আছে,বীরত্ব আছে আনন্দ ফূর্তিও আছে আবার লোভও আছে।কোনটাই আমি ছাড়তে পারবো না,শুধু অন্যের প্রতি মায়া ও দায়িত্বটা ছাড়তে পারবো।সরকারের পক্ষ থেকে এতো ত্রাণ,এতো অনুদান আপনার পেট ভরে না।তাইতো আপনার খাটের নিচে গরীবদের দেওয়া সব চাল- তেল পাওয়া যায়।
সরকার বসিয়ে নিরাপদে রেখে আপনাকে বেতন দিয়ে খাওয়াচ্ছে আর আপনি ঠিকই ঘর ভর্তি প্রাইভেট পড়াচ্ছেন।অভিবাবকদের বোঝাচ্ছেন শিশু পড়ালেখায় পিছিয়ে যাচ্ছে।এটা কি আপনি শিশুর শিক্ষা দেওয়ার জন্য নাকি টাকা ইনকামের ধান্দা।এতোই যদি বুঝেন গরীব ছেলেমেয়ে যারা প্রয়োজনেও টাকা দিয়ে প্রাইভেট পড়তে পারেনা,লেখাপড়ার খরচ জোগাতে পারে না এমন কয়টি শিশুকে সাহায্য করতে পেরেছেন হিসাব মমিলাতে পারবেন?এটা পারবেন না। কারন, এ লিস
আপনার কাছে নেই।আমি যদি বলি,কয়জন শিক্ষার্থীকে নাম্বার বাড়িয়ে দিয়ে অন্য আরেক মেধাবীকে পিছিয়ে দিয়েছেন?সেটার হিসাব হয়তো মিলাতে পারবেন।
মাননীয় প্রধানমন্ত্রী থেকে আদেশ এসেছে ঘরে বসে শিখি প্রোগ্রাম চালু করতে,অন লাইন ক্লাস চালু করতে, ফ্রি সুবিধা দেওয়ার জন্য শিক্ষার্থী ও অভিভাবকের সাথে ফোন দিয়ে কথা বলে মনিটরিং করার জন্য। আপনি কি আপনার এ দায়িত্ব পালন করছেন? আমি হলফ করে বলতে পারি দেশের সর্বোচ্চ ৫% শিক্ষকও এ দায়িত্ব পালন করে কিনা সন্ধিহান।আমি যেখানে দায়িত্ব রত,শিক্ষার্থীদের অভিভাবকের সাথে কথা বলতেই তারা বলে ম্যাম প্রাইভেটে দিয়েছি।আমি তাদের নিরূৎসাহিত করি।আমি তাদেরকে বলি ঘরে বসে শিখানোর জন্য।বাহিরে না দেওয়ার জন্য।তখন তারা কেউ বলে ম্যাম একা দেই।কেউ বলছে,স্যার এসে একা পড়িয়ে যায়।কেউ আবার স্যারদেরকে উপরে রাখার জন্য বলে আমি স্যারকে অনুরোধ করেছি। স্যার বলছে পড়াবেন না।আজ আমার ভাতিজা প্রাইভেটে যায়,কাল আমার বাড়ির আরেকজন।আমি না করলেও আমার কথা কেউ কানে তুলছে না।কারণ,একটাই অন্যরা তাদের ছেলেমেয়ে থেকে এগিয়ে যাবে।কিন্তু শিক্ষক মহোদয়গণ আপনারাতো শিক্ষিত জানেন, বুঝেন।আপনারা কোচিং যদি বন্ধ রাখেন তাহলে কি শিক্ষিত-অশিক্ষিত অভিভাবকরা তাদের সন্তানকে বাহিরে পাঠাতে পারতো?
আমি এ সমস্ত অসচেতন লোভী জনগনকে একটা কথা বলতে চাই।আজকের শিক্ষার্থীরাই আগামীদিনের কর্ণধার। এতো লোভ কেন আপনার?একটা শিক্ষার্থীর কিছু হলে এর দায়ভার কে নিবে?

- Advertisement -

সর্বশেষ খবর

ভোলায় কিস্তির টাকার জন্য জামিন দাতার বাড়িতে এনজিও কর্মীর চড়াও

মোঃ সিরাজুল ইসলাম। ভোলা জেলা প্রতিনিধি।। ভোলায় করোনা কালীন সময়ে ঋনের কিস্তির টাকা আদায়ের জন্য জামিনদাতার বাড়িতে এক এনজিও (গ্রামীণ জন উন্নয়ন সংস্থা...
- Advertisement -

মিয়ানমারে সমরসজ্জায় সীমান্তে উত্তেজনা বাড়ছে

মো.শহীদ। উখিয়া প্রতিনিধি।। বিপি ৪৫ এ সালিডং বর্ডার ক্যাম্পের কাছাকাছি মিয়ানমারের সেনা ক্যাম্প মিয়ানমারের বাংলাদেশ সীমান্তে ব্যাপক সমরসজ্জার কারণে উত্তেজনা বৃদ্ধি পাচ্ছে। রাখাইন...

আলমডাঙ্গার ফরিদপুরে বৃক্ষরোপণ কর্মসূচীর উদ্বোধন

সাইফ জাহান। চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধি।। আলমডাঙ্গার ফরিদপুরে বৃক্ষরোপণ কর্মসূচির উদ্বোধন করা হয়েছে। বেলগাছি ইউপি চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী এস এম গোলাম সরোয়ার শামীম এর উদ্যোগে...

রিলেটেড নিউজ

ভোলায় কিস্তির টাকার জন্য জামিন দাতার বাড়িতে এনজিও কর্মীর চড়াও

মোঃ সিরাজুল ইসলাম। ভোলা জেলা প্রতিনিধি।। ভোলায় করোনা কালীন সময়ে ঋনের কিস্তির টাকা আদায়ের জন্য জামিনদাতার বাড়িতে এক এনজিও (গ্রামীণ জন উন্নয়ন সংস্থা...

মিয়ানমারে সমরসজ্জায় সীমান্তে উত্তেজনা বাড়ছে

মো.শহীদ। উখিয়া প্রতিনিধি।। বিপি ৪৫ এ সালিডং বর্ডার ক্যাম্পের কাছাকাছি মিয়ানমারের সেনা ক্যাম্প মিয়ানমারের বাংলাদেশ সীমান্তে ব্যাপক সমরসজ্জার কারণে উত্তেজনা বৃদ্ধি পাচ্ছে। রাখাইন...

আলমডাঙ্গার ফরিদপুরে বৃক্ষরোপণ কর্মসূচীর উদ্বোধন

সাইফ জাহান। চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধি।। আলমডাঙ্গার ফরিদপুরে বৃক্ষরোপণ কর্মসূচির উদ্বোধন করা হয়েছে। বেলগাছি ইউপি চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী এস এম গোলাম সরোয়ার শামীম এর উদ্যোগে...
- Advertisement -