নীলফামারী সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণির শিক্ষার্থীদের মূল্যায়ন পরীক্ষা

স্বপ্না আক্তার,রংপুর ব্যুরো প্রধান।

করোনাভাইরাসের বিস্তার ঠেকাতে ১৭ই মার্চ থেকে দেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করেছে সরকার। এ সময়ে নিজ বাসা-বাড়িতে অবস্থানের নির্দেশনাও দেওয়া হয়েছে শিক্ষার্থীদের। তবে অনলাইন মাধ্যমে ক্লাস নিয়েচ্ছে নীলফামারী সরকারী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়। অনলাইনের মাধ্যমে পাঠদান পদ্ধতির সিদ্ধান্তকে সাধুবাদ জানিয়েছেন শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা। অনলাইন ক্লাসে কোনো প্রশ্ন থাকলে চ্যাটবক্সে মেসেজ দিতে পারে শিক্ষার্থীরা। এ ভাবে চলেছে করোনা ভাইরাসের ফলে সরকারের নির্দেশনা অনুযায়ী শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষনা করার পর থেকে।

সম্প্রতি করোনার কারণে চলতি বছর জেএসসি-জেডিসি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে না। আর স্ব-স্ব প্রতিষ্ঠানের মূল্যায়নের মাধ্যমে জেএসসি-জেডিসি পরীক্ষার্থীদের নবম শ্রেণীতে উত্তীর্ণ করা হবে বলে জানিয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। এ অবস্থায় স্ব-স্ব মূল্যায়ন পদ্ধতিতে শিক্ষার্থীদের মূল্যায়ন করে নবম শ্রেণীতে উত্তীর্ণ করার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে স্কুলগুলোকে বলেছে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদফতর। মঙ্গলবার মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদফতর থেকে সব সরকারী-বেসরকারী স্কুলকে এ নির্দেশনা দিয়ে চিঠি পাঠানো হয়েছে।

তবে, পরীক্ষার্থীদের কি উপায়ে মূল্যায়ন করে পরবর্তী শ্রেণীতে উত্তীর্ণ করার ব্যবস্থা করা সে বিষয়ে স্কুলগুলোকে সুস্পষ্টভাবে কিছুই জানায়নি অধিদফতর। করোনাভাইরাস মহামারীর কারণে চলতি বছরের জেএসসি ও জেডিসি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে না। গত ২৭ আগস্ট এ সিদ্ধান্তের কথা জানায় শিক্ষা মন্ত্রণালয়।

সরকারের এ সিদ্ধান্ত অনুযায়ী নীলফামারী সরকারী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় অষ্টম শ্রেনীর মূল্যায়ন পরিক্ষা নেওয়ার প্রস্তুতি নিয়েছে। উক্ত বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক আব্দুল মোতিনের স্বাক্ষরিত নোটিশে জানা যায়, (৪ অক্টোবর) তারিখের মধ্যে অভিভাবককে অত্র বিদ্যালয়ের অফিস কক্ষ থেকে প্রশ্ন ও উত্তরপত্র সংগ্রহ করতে হবে এবং নিজ বাসায় অভিভাবকের উপস্থিতিতে পরিক্ষা হবে (৬ অক্টোবর) বাংলা, ( ৮ অক্টোবর) ইংরেজি, (১০ অক্টোবর) গনিত, (১২ অক্টোবর) বাংলাদেশ ও বিশ্বপরিচয়, (১৪ অক্টোবর) বিঙ্গান পরিক্ষা সকাল ১১ টা থেকে ১ টা পর্যন্ত হবে। ১৫ অক্টোবরের মধ্যে প্রশ্নপত্র সহ পরিক্ষার মূল্যায়ন খাতা সকাল ১১ টা হতে ১ টার মধ্যে জমা দিতে হবে।

নীলফামারী সরকারী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক ইদ্রিস আলীর সাথে কথা হলে তিনি প্রতিবেদককে জানায়, করোনায় শিক্ষা প্রতিষ্টান বন্ধ ঘোষনা থাকলেও আমরা অনলাইনের মাধ্যমে ক্লাস চালু করেছি। শিক্ষার্থীদের আমাদের সাধ্যমতো অনলাইনের ক্লাসের মাধ্যমে লেখাপড়া করিয়েছি। সরকারের এ সিদ্ধান্ত অনুযায়ী অষ্টম শ্রেনীর মূল্যায়ন পরিক্ষা নেওয়ার প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে। অাগামী (৪ অক্টোবর) এর মধ্যে অভিভাবকদের প্রশ্নপত্র ও খাতা দেওয়া হবে। ( ৬ অক্টোবর থেকে ১৪ অক্টোবর) বাসায় অভিভাবকদের উপস্থিতিতে পরিক্ষা হবে। প্রধান শিক্ষককে এ বিষয়ে প্রতিটি কাজে সহযোগিতা করতেছি।

নীলফামারী সরকারী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক আব্দুল মতিন এ প্রতিবেদককে বলেন, (১৭ মার্চ) করোনয় শিক্ষাপ্রতিষ্টান বন্ধ থেকে আমরা অনলাইন ক্লাস চালু করেছি। তাই বিদ্যালয় বন্ধ থাকলেও শিক্ষাদান কার্যক্রম বন্ধ নেই। অনলাইনেই সংশ্লিষ্ট কোর্স শিক্ষকরা ছাত্র-ছাত্রীদের পাঠদান করছেন। আমরা চাই, সাময়িক বা দীর্ঘমেয়াদি সময়ে বিদ্যালয় বন্ধ থাকলেও শিক্ষার্থীদের যেন লেখাপড়া থেমে না থাকে। অাগামী (৪ অক্টোবর) এর মধ্যে অভিভাবকদের প্রশ্নপত্র ও খাতা নেওয়ার জন্য নোটিশ দেওয়া হয়েছে। অভিভাবকদের হাতে প্রশ্নপত্র ও খাতা দেওয়া হবে এবং তাদের উপস্থিতিতে বাসায় পরিক্ষা হবে।