দেশব্যাপী গুণী সংস্কৃতিজনকে সম্মাননা প্রদান করা হবে – কেএম খালিদ

বিশেষ প্রতিনিধি।।

সংস্কৃতি বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ এমপি বলেছেন, করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে দেশের সাংস্কৃতিক অঙ্গনে পুনর্জাগরণ সৃষ্টির লক্ষ্যে সারাদেশে সপ্তাহব্যাপী সাংস্কৃতিক উৎসব আয়োজন করা হবে।
তাছাড়া তৃণমূল পর্যায়ে সংস্কৃতি চর্চাকে উৎসাহ প্রদান ও বেগবান করার লক্ষ্যে এখন থেকে নিয়মিত প্রতি জেলা থেকে ৫-১০ জন গুণী সংস্কৃতিজনকে সম্মাননা প্রদান ও তাঁদের নিয়ে স্মারক বক্তৃতা প্রদান অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হবে।শিল্প-সাহিত্য-সংস্কৃতিতে অগ্রসরমান জনপদ হবিগঞ্জ থেকে এ কার্যক্রমের শুভ সূচনা করা হবে।

প্রতিমন্ত্রী আজ হবিগঞ্জ সার্কিট হাউজে জেলা প্রশাসন আয়োজিত ‘সুধীজন ও সাংস্কৃতিক ব্যক্তিবর্গের সাথে মতবিনিময়’ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন।

প্রধান অতিথি বলেন, এ বছর দেশের মোট ১০০ জন বরেণ্য সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্বের জীবন ও কর্ম নিয়ে বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমি বিশেষ অনুষ্ঠান আয়োজন করবে যেখানে হবিগঞ্জের গুণী সংস্কৃতিজনও থাকবে। সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী বলেন, মহান মুক্তিযুদ্ধসহ এ দেশের সকল গণতান্ত্রিক আন্দোলনে সংস্কৃতিকর্মীরা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছিল। তাঁরাই আমাদের মনের খোরাক জোগান। সেসব সংস্কৃতিকর্মীদের সম্মান জানানো তথা স্বীকৃতি প্রদান রাষ্ট্রের দায়িত্বের মধ্যে পড়ে। তিনি বলেন, সীমিত বাজেটের মধ্য দিয়েও আমরা সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে গুণী সংস্কৃতিকর্মীদের সম্মাননা কিংবা স্বীকৃতি প্রদানে যথাসাধ্য চেষ্টা করে যাচ্ছি। করোনাকালীন সময়ে ইতোমধ্যে সারাদেশের প্রায় ১২,০০০ জন সংস্কৃতিসেবীকে আর্থিক সহায়তা প্রদান করা হয়েছে। তাছাড়া গত অর্থবছরে সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের কল্যাণ অনুদান খাত হতে নিয়মিত তালিকাভুক্ত প্রায় ৪,৩০০ জন সংস্কৃতিসেবীদের আর্থিক অনুদান প্রদান করা হয়েছে।

হবিগঞ্জ জেলা প্রশাসক মো. কামরুল হাসান এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তৃতা করেন বাংলাদেশ জাতীয় সংসদের বেসরকারি সদস্যদের বিল ও বেসরকারি সিদ্ধান্ত প্রস্তাব সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি এবং হবিগঞ্জ-২ আসনের সংসদ সদস্য এডভোকেট আব্দুল মজিদ খান, হবিগঞ্জ-৩ আসনের সংসদ সদস্য এডভোকেট মো. আবু জাহির এবং হবিগঞ্জের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ উল্ল্যা বিপিএম পিপিএম।

পরে প্রতিমন্ত্রী জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন উপলক্ষে জেলা প্রশাসন ও জেলা শিল্পকলা একাডেমি, হবিগঞ্জের আয়োজনে স্থানীয় সংস্কৃতিকর্মীদের মাঝে বিশেষ উপহার প্রদান করেন এবং অনলাইনে অনুষ্ঠিত বিভিন্ন সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করেন।